চাঁদের বুকত পোথ্থোম চারাগছ।

চাঁদের বুকত পোথ্থোম চারাগছ।

চাঁদের পিটিত এই পোথ্থোম কোন জৈব জিনিসের উবজন হৈল্। চাঁদের যে পাশখান পৃথিবীর উল্টাপাকে বা পৃথিবী থাকি দ্যাখা যায় না ঐ জাগাত চিনা যন্ত্রযান চ্যাং- 4 হাতে যে ছবি পাঠাইছে তাতে এই দৃশ্য দ্যাখা গেইচে। দীর্ঘমেয়াদী মহাকাশ গবেষণা হিসাবে চিনা মহাকাশ গবেষণা সংস্থার এটা একটা...
কামতা কোচবিহার রাজ্যের ভুমিবিভাগ বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ তৈথ্য।

কামতা কোচবিহার রাজ্যের ভুমিবিভাগ বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ তৈথ্য।

যে মানষি খাজনা দিয়া জমিনের ভোগ দখল করেন তাক কয় প্রজা। চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত সূত্র হিসাবে সরকার দ্বারা যায় কোনো পরগনার মালিকানা স্বত্ব পায় তাক কয় জমিদার।ভুই এর অধিকারী যে দলিল বা পত্র দ্বারা নির্দিষ্ট বা অনির্দিষ্টকালের সমায়ের জন্যে প্রজাক জমি দান করিতেন তাক কয়...
কোচবিহার রাজ্যের জমির ভাগগুলা 1870 – 1880 AD

কোচবিহার রাজ্যের জমির ভাগগুলা 1870 – 1880 AD

জোতদার, চুকানীদার, দরচুকানীদার, দরাদরচুকানীদার, তস্যচুকানীদার আর আধিয়ার ছাড়াও আরো ভালে কয়নাকান জমির অধিকারী ছিল কোচবিহার রাজ্যত (সমায়টা 1870 – 1880 সাল নাগাদ)। সেই জমির অধিকারীলা হৈল্ – 1. ব্রণ্মত্তর 2. মোকররী 3. প্যাটভাতা 4. বকসিস 5. দেবত্র 6....
মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণের নাবালক সমায়কালত কোচবিহার রাজ্যের জমি বিভাগ আর জমির অধিকার।

মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণের নাবালক সমায়কালত কোচবিহার রাজ্যের জমি বিভাগ আর জমির অধিকার।

1883 সালের আগ পর্যন্ত অর্থাৎ মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণের নাবালক সমায়কালত কোচবিহারের জমির বিভাগ আর তার অধিকার বা ভুমির স্বত্ববান কেমন ছিল তার খানেক বর্ণনা দেওয়া হৈল্। জমির বন্দোবস্ত 12 বছরের জন্যে ছিল, রাজা সাবালক হওয়ার (1862-1880 সাল, 18 বছরে সাবালক) পর আরো তিন বছর...
দেশী গরুর খাউদাত (Milk) সোনার ভাগ!

দেশী গরুর খাউদাত (Milk) সোনার ভাগ!

দেশী গরুর খাউদাত (দুধত) সোনা থাকে ঐজন্যে গরুর খাউদার রং হলদিয়া হয়, কোনো কালে শোনোং নাই, একজন ডেয়ারী টেকনোলজিস্ট হিসাবেও বই পত্র পড়ি পাং নাই কোনো বইওত। বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষের বক্তব্য এখান, উমার কথা অনুযায়ী গরুর কুজত স্বর্ণনাড়ী থাকে আর তার উপরা সূর্যের আলো পড়িলে...
error: Content is protected !!