হামার ভাষার একটা নামের দাবি তোলা জরুলি ক্যানে?

হামার ভাষার একটা নামের দাবি তোলা জরুলি ক্যানে?

এক ভাষা এক নাম। এই মুহূর্তে হামার ভাষার একটা নামের দাবি তোলা জরুলি ক্যানে?  খুব তারাতারি দ্যাশের মাথাগনতি(জনগননা ২০২১)-র প্রক্রিয়া শুরু হবে। NPR(National Population Register)-র ওত যদি হামার ভাষার একটা নাম না থাকে তাইলে সঠিক তথ্য উঠি আসিবে না। NPR-এর দায়িত্বে যে...
কোচবিহার জেলাশাসকের করণ – কি নাম ছিল আগত? ভিটি থাপন অনুষ্ঠান।

কোচবিহার জেলাশাসকের করণ – কি নাম ছিল আগত? ভিটি থাপন অনুষ্ঠান।

1892 সালের 20শে ফেব্রুয়ারি  সৈন্ঝা 5টার সমায় প্রস্তাবিত ল্যান্সডাউন হলের ভিটি উদ্বোধন করেন মানী ভাইসরয় মহাশয়। ল্যান্সডাউন হলের জমিনের উপরা বিশাল শামিয়ানা টানেয়া তারে নিচত ঐ সমারোহ হৈচিল। দেশ বিদেশের ভাইল্যা অতিথি আসিছিল সেই দিনত। ভাইসরয়ক নিয়া মহারাজা...
কোচবিহার রাজ্যের জমির ভাগগুলা 1870 – 1880 AD

কোচবিহার রাজ্যের জমির ভাগগুলা 1870 – 1880 AD

জোতদার, চুকানীদার, দরচুকানীদার, দরাদরচুকানীদার, তস্যচুকানীদার আর আধিয়ার ছাড়াও আরো ভালে কয়নাকান জমির অধিকারী ছিল কোচবিহার রাজ্যত (সমায়টা 1870 – 1880 সাল নাগাদ)। সেই জমির অধিকারীলা হৈল্ – 1. ব্রণ্মত্তর 2. মোকররী 3. প্যাটভাতা 4. বকসিস 5. দেবত্র 6....
মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণের নাবালক সমায়কালত কোচবিহার রাজ্যের জমি বিভাগ আর জমির অধিকার।

মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণের নাবালক সমায়কালত কোচবিহার রাজ্যের জমি বিভাগ আর জমির অধিকার।

1883 সালের আগ পর্যন্ত অর্থাৎ মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণের নাবালক সমায়কালত কোচবিহারের জমির বিভাগ আর তার অধিকার বা ভুমির স্বত্ববান কেমন ছিল তার খানেক বর্ণনা দেওয়া হৈল্। জমির বন্দোবস্ত 12 বছরের জন্যে ছিল, রাজা সাবালক হওয়ার (1862-1880 সাল, 18 বছরে সাবালক) পর আরো তিন বছর...
কবিতার নাম “কৃষকের ক্ষেত” – কবি রোহিত বর্মন।

কবিতার নাম “কৃষকের ক্ষেত” – কবি রোহিত বর্মন।

কৃষকের ক্ষেত 📝রোহিত বর্মন চারিদিকে সোনালী রঙে ভরা মাঠ রোজ সকালে সবাই মিলে চলে হাট। যেই দিকে দুনয়ন যায় শস্য ভরা চারিদিকে কৃষকের ক্ষেত দিয়ে মোরা। রোজ সকালে চাষির দল চলছে মাঠে সকাল-বিকাল সবাই মিলে ধান কাটে। এই ধান দিয়ে তৈরি হয় চাউল ওই চাউল দিয়ে সেবা করবে বাউল। বলদ...
error: Content is protected !!