মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণের শিকার যাত্রা (1881-1883)

Posted by

1881 সাল – 1883  সাল
1881 সালে ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম দিকে শিকার যাত্রা শুরু করেছিলেন, সঙ্গী ছিলেন Mr. Ashton, Fraser, Thomas, Turner, A. Apcar, Kneller, Alexander, ও Major Jarrett. খাগরাবাড়িতে ক্যাম্প করা হয়েছিল, কয়েকদিন পর Mr. Wilson আর Mr. Dalton ও যোগ দিয়েছিল। এই যাত্রায় শিকারগুলোর মধ্যে ছিল-

গন্ডার 1টা
সম্ভর 4টা
মহিষ 5টা

5টা মহিষের মধ্যে 1টা মহিষের শিং অসাধারণ সুন্দর ছিল। মহিষটি10ফুট 1.5 ইন্চি লম্বা ছিল আর শিং এর দৈর্ঘ্য 24 ইন্চি ছিল। 16 ফেব্রুয়ারি আরো 3টা মহিষ আর 1টা করে হরিন আর সম্ভর শিকার করেছিলেন মহারাজা আর তার দলবল। 17 ফেব্রুয়ারি, তাদের শিকারের মধ্যে ছিল 1টা বাঘ, 1টা হরিন, 1টা গন্ডার, 3টা সম্ভর আর 2টা শুয়োর। এর দুদিন পরেই পারগাও এর জঙ্গলে অতর্কিতে বাঘ আক্রমনের হাত থেকে রক্ষা পেয়ে গিয়েছিলেন মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণ ও তার দলবল। ভাগ্য ভাল ছিল সবাই হাতির পিঠেই ছিল তখন। Kneller সাহেব তার সট গান দিয়ে বাঘের কানের কাছে গুলি করে বাঘটিকে মাটিতে লুটিয়ে দিয়েছিলেন। 22 ফেব্রুয়ারি তারিখে 1টা গন্ডার সহ 22 ফেব্রুয়ারি তারা 1টা গন্ডার, 5টা বাইসন ও 2টা সম্ভর শিকার করেছিলেন। এই যাত্রায় তারা পারোকাটার নিকটবর্তী নদী থেকে অনেক মাছও ধরেছিলেন যার ওজন 2.5 পাউন্ড থেকে 14 পাউন্ড (1 পাউন্ড =453 গ্রাম) পর্যন্ত ছিল। 

1882 সাল

প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতে শিকার যাত্রা শুরু করেছিলেন মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণ ও তার ব্রিটিশ সঙ্গীসাথী। সঙ্গীদের মধ্যে ছিলেন General Hughes, Major Cook, Dr. Simpson, Capt. Gordon আর Mrs. Evans Gordon. সুকানিদিঘীর কাছে তারা 2টা বাঘ, 1টা হরিন  আর 1টা ভালুক শিকার করেছিলেন। এর কয়েকদিন পরেই হলদিবাড়ি তে Dr. Simpson আর Charley Biscoe 1টা মহিষ শিকার করেছিলেন। হলদিবাড়ির তিস্তা নদীতে তারা বিশাল আকৃতির মহাশির মাছও ধরেছিলেন যার ওজন ছিল 35 পাউন্ড। ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে ব্রিটিশ অফিসারদের একটা বড় দল ও মহারাজা আবার ক্যাম্পে যোগ দেন যাদের মধ্যে ছিলেন Sir Ashley, Sir William Eden, Lawer Schalch, M. Eden, Lord Chester, Lord Durham, Simlson, Henry, Gordon আর Mrs Gordon আর Charles Moore. এই বিশাল দলটি নাগুর হাট* (Gadur Haut?), ফালাকাটা, মহাকালগুড়ি, পারোকাটা, বেরবেরা এইসব জায়গা গুলিতে শিকার করেছিলেন। 

4 মার্চ অর্থাৎ মোটামুটি এক সপ্তাহের শিকার যাত্রায় তারা যা শিকার করেছিলেন তা হল-

বাঘের বাচ্চা 3টা
গন্ডার 3টা
মহিষ 11টা
হরিন 5টা
সম্ভর 17টা
শুয়োর 4টা
পারোকাটার কাছে তারা একটা বিশাল আকৃতির মহিষ শিকার করেছিলেন। 
 

মার্চ মাসেই মহারাজা আর তার অন্য সঙ্গী সাথী আর একবার শিকারে বেরিয়েছিলেন পারোকাটার জঙ্গলে। এবার সঙ্গীদের মধ্যে ছিলেন Southby, Gladstone, Browne, আর Count Seeback. এবার তারা 2টা গন্ডার, 5টা মহিষ, 11টা সম্ভর, 6টা হরিন আর কিছু শুয়োর শিকার করেছিলেন। একটা গন্ডার মারাত্মক ভাবে আহত হয়েও পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছিল। দুটো বাঘের দেখা মিললেও তাদেরকে বাগে আনা যায়নি এই যাত্রায়। 

4 এপ্রিল আর 15 এপ্রিল এর মধ্যে মহারাজা ও তার কিছু ব্রিটিশ সঙ্গী আবার শিকারে গিয়েছিলেন। এই যাত্রায় 4 টা গন্ডার, 13টা মহিষ, 9টা সম্ভর, 3টা হরিন আর কিছু শুয়োর শিকার করে এবছরের মত শিকারে ইতি টেনেছিলেন। 

1883 সাল

যথারীতি সেই ফেব্রুয়ারি মাসেই শিকার যাত্রা শুরু করেছিলেন মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণ। এবার তার সঙ্গীদের মধ্যে দুই খুড়তুতো ভাইও ছিল। 5টা চিতা সহ 2টা বাঘ শিকার করেছিলেন প্রথম দুদিনের শিকারে। ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত শিকার যাত্রা করেছিলেন মহারাজা আর তার ব্রিটিশ সঙ্গীসাথী যাদের মধ্যে ছিলেন Cammell, Dawnay, Davies, Fitzgerald, Lucas, Peck, Thronhill, Kneller, আর  Dalton. নাগুর হাট* (Gadur Haut?) এ ক্যাম্প করা হয়েছিল এবার। 15 মার্চ এর পর কেউ কেউ ফিরে এসেছিলেন কিন্তু মহারাজা আর তার কিছু সঙ্গী 23 মার্চ পর্যন্ত শিকারে ছিলেন। এবারের শিকারের মধ্যে ছিল-

বাঘ 4টা
গন্ডার 6টা
মহিষ 22টা
বাইসন 1টা
ভালুক 1টা
বড়সিং 14টা
সম্ভর 4টা
হরিন 10টা
মাছও ধরেছিলেন তারা 50 – 60টা তার মধ্যে 18.5 পাউন্ডের একটা মাছ পেয়েছিলেন। 

To be Continued…….

Facebook Comments

Leave a Reply / Comment / Feedback