🎶”Bena” (ব্যানা) – Musical Instrument : Kamta Culture

Posted by

About 18 inch long – its a single stringed musical instrument. The body is made of bamboo slip pushed through a wooden cup (Tokrai) at one end and fixed other end with a clog (Kunda). The wooden cup is covered with skin made from stomach of goat. The diameter of the cup is 6″ and the vertical distance from the middle of the skin to the apex of the cup is nearly 3″. Sometimes stump of a bamboo is used instead of a wooden cup. The string is made by winding horse hairs. One end is winded round the tuning peg at the neck and the other end is fixed to the knob at the outer base of the cup. The string is made to pass over a bridge placed on the resonator skin so as to allow some space between the string and the body.

The friction bow is made from a bamboo slip and horse hair. The string of the Bena is stretched to the required strength by turning the top peg. Hairs of the bow is drawn across the string and make vibration, at the same time fingers of the left hand play upon the string to produce modulations of the tune.

It is usually played in “Kushan Gaan”, “Chor churnir Gaan” and “Udashi Gaan” of Vaishnavas. It is also played solo. It is never played in other congressional songs and dances programme.

🔰কামতাপুরী / রাজবংশী ভাষাত:

ব্যানা হৈল্ 18 ইন্চি লম্বা একতারের বাদ্যযন্ত্র।বাঁশের ঝিক দিয়া গাওখান তৈয়ার হয় যার অ্যাক দিক খুটার টোকরাই এর ভিতরা শোন্দা অবস্থায় থাকে আর অ্যাক দিক খুটার আউংটাত আটকে থাকে। টোকরাই টা চামড়া দিয়া ঢাকা যেটা ছাগলের ভুরি থাকি তৈয়ার হয়। টোকরাই এর ব্যাস 6 ইন্চি আর চামড়ার মাঝখান থাকি টোকরাই এর উপরা পর্যন্ত খাড়া দূরত্ব প্রায় 3 ইন্চি। কোনো কোনো সমায় খুটার পরিবর্তে বাঁশের চোঙ ব্যবহার করা হয়। ঘোড়ার কয়টা চুলি পাকেয়া তার বানা হয়। গালার ওদি সুর তোলার যে গোঁজের সাথত এই তারের অ্যাক দিক আটকানো থাকে আর অন্যদিক আটকানো থাকে টোকরাই এর বায়রার গোল ফোলা অংশের সাথত। শব্দ ওসার করা চামড়ার উপরা রাখা ব্রীজের নাকান জিনিসের উপরা দিয়া তারলা টানি নিয়া যাওয়া হয় বুলি ব্যানার গাওখান আর তারের মধ্যত ফাকা জাগা থাকে।

বাঁশের ঝিক আর ঘোড়ার চুলি দিয়া বানা হয় সুর তোলার ধনুক। মাতার উপরা গোঁজগুলাক ঘুরি ঘুরি ব্যানার তারলাক প্রয়োজন মতন তান দেওয়া হয় আর ধনুকের তারখান দিয়া ব্যানাত সুর তোলা হয়। ন্যারা হাতের নগুলগুলা তারের উপরা থুইয়া রকমারি সুর তৈয়ার করা হয়।

সাধারনত “কুশান গান”, “চোর চুরনির গান” আর বৈষ্ণবলার “উদাসী গানত” এই যন্ত্র ব্যবহার করা হয়। একলায় একলায়ো ব্যানা বাজানো হয়। অন্য ধর্মীয় অনুষ্ঠানের গানত বা নাচত কোনোদিনো ব্যানা বাজানো হয় না।

Facebook Comments

Leave a Reply / Comment / Feedback